Currently set to Index
Currently set to Follow
বই রিভিউ ও ডাউনলোড

দুধ চা খেয়ে তোকে গুলি করে দেব বই রিভিউ

বইয়ের নাম-“দুধ চা খেয়ে তোকে গুলি করে দেব”
লেখক-জাহিদ হোসেন
প্রকাশনী-বাতিঘর প্রকাশনী
পৃষ্ঠা-২৫৫টি
মূল্য-৩০০টাকা
ফ্লাপ থেকে….
মন মেজাজ ভালো থাকলে মোড়ের চা- দোকানি মান্নান মিয়া গল্প জুড়ে দেয়।গল্পটা এই মান্নান মিয়ার কাছ থেকেই শোনা।
অনেক অনেক দিন আগের কথা,দুর্গম অরন্যে এক দয়ালু সন্ত বাস করতেন।উনি ছিলেন এক ধন্বন্তরি চিকিৎসক।যেকোনো রোগ সারাতে পারতেন।অসুস্থ কেউ উনার কাছে এসে খালি হাতে ফিরে যেত না।কিন্তু একটা জিনিস উনি সারাতে পারতেন না,সেটা হল মৃত্যু।মানুষের মরণশীলতা তাকে পীড়িত করতো,ব্যথিত করতো।জানতেন,মৃত্যুর কাছে সবাই অসহায়।এক দিন গহীন জঙ্গলে এক রহস্যময় গাছ খুঁজে পান তিনি।সন্তের মতে ,গাছটি সহস্রাব্দ-প্রাচীন।মানবজাতির অভ্যুদয়ের আগে থেকেই আছে।কিন্তু কী সেই রহস্যময় গাছের মাহাত্ম্য?
ঢাকা শহর জুড়ে কে জানি মানুষ খুন করে দেয়ালে গ্রাফিতি এঁকে যাচ্ছে-দুধ চা খেয়ে তোকে গুলি করে দেব।পত্রপত্রিকা উদ্ভট এক লেভেল সেঁটে দেয়

খুনির-“দুধ চা কিলার”।

পুলিশের সিনিয়র গোয়েন্দা রফিকুল ইসলামের কাছে খুনগুলো এক বিরাট রহস্য।কে এই খুনি?কী চায় সে?এই দুর্বোধ্য গ্রাফিতির মানেই বা কি?বিদগ্ধ পন্ডিত ড. মেহবুব আরেফিন চৌধুরী হইচই ফেলে দেন দ্য ইকোনমিস্ট-এ চা বিষয়ক একটি আর্টিকেল লিখে -দ্য টি অব শ্যানং।সবার ধারনা ডক্টরের কাছে বিশাল এক রহস্যের চাবি আছে।চাবি নাও,খুলে যাবে অফুরন্ত সম্পদের ভান্ডার!
পাঠ প্রতিক্রিয়া…..
দারুন টান টান একটা থ্রিলার গল্প।একাধিক চরিত্র নিয়ে লেখক নিয়মিত এক খেলায় মেতেছেন এখানে।যে খেলাটা পাঠক হিসেবে বেশ উপভোগ্য।ফিকশন হিসেবে এটা লেখকের দারুন এক সৃষ্টি।এটা যেহেতু ফিকশন,তাই এটাকে ফিকশন হিসেবেই দেখতে হবে।তবেই এর আসল মজাটা নেয়া সম্ভব।লেখক প্রথমেই বলেছেন বইটি লিখে তিনি দারুন আনন্দ পেয়েছেন।আমিও একজন পাঠক হিসেবে লেখককে বলতে চাই,বইটি পড়ে আমিও বেশ আরাম পেয়েছি।
গল্পের প্রয়োজনে বেশ কিছু মজার মজার সংলাপ খুঁজে পাওয়া যায়।যেগুলো সত্যিই হাসতে বাধ্য করে।এটাও লেখকের সফলতা বলতে হবে।পুরোটা সময় জুড়েই জাহিদ হোসেনের গলি-ঘুপছির কৃত্রিম দুনিয়ায় দারুন সময় কেটেছে।
ছবি রহস্য-
“ঢাকায় নতুন এক সিরিয়াল খুনীর আবির্ভাব হয়েছে।যে খুন করে যেকোন চা’য়ের দোকানের আশেপাশে।লাশের পাশের দেয়ালে একটা গ্রাফিতি আঁকা থাকে।তাতে লেখা থাকে -“দুধ চা খেয়ে তোকে গুলি করে দেব।”
কিন্তু লাশের পাশে থাকে এক কাপ লিকার চা ও তিনটা বিস্কুট।
বেশ রসিক খুনী বলতে হবে!!
পৃথিবী বইয়ের হোক….
বন্ধুত্ব হোক বইয়ের সাথে…..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button